রবিবার, ১২ Jul ২০২০, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন

নোটিশঃ
বরিশাল থেকে প্রকাশিত অনলাইন নিউজ পোর্টা্ল "দৈনিক সময়ের খবর"বরিশাল বিভাগের সকল জেলা ও উপজেলা সহ মহানগরীর ৩০ ওয়ার্ড ও ৪ টি থানায় প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হইবে।আগ্রহী প্রার্থীরা ৭ দিনের মধো প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ যোগাযোগ করুন।
সংবাদ শিরোনাম :
একজন দেশপ্রেমিক স্বপ্নদ্রষ্টা যখন পথপ্রদর্শক। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বান্ধবী কে একাধিকবার ধর্ষণ! অতঃপর অন্তঃসত্ত্বা! বরিশাল কলেজের নাম পরিবর্তন নিয়ে নগরজুড়ে তোলপাড়! করোনা জয়ী পুলিশ যোদ্ধাদের সংবর্ধনা দিলেন পুলিশ কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান। দীর্ঘ ১২ বছর অপেক্ষিত মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের নিয়োগ,প্রধানমন্ত্রীকে বিএএমটিপি’র কৃতজ্ঞতা ও শুভেচ্ছা। পুত্রসন্তানের জনক হলেন সার্জেন্ট শহিদুল ইসলাম। সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোর আর নেই। বরিশালে সড়কের উপর গেট নির্মানের পায়তারা, মেয়রের হস্তক্ষেপ কামনা। সাংবাদিকতার সুযোগ দিচ্ছে “বরিশাল সময়ের খবর” শুদ্ধাচার পুরস্কার পাচ্ছেন প্রফেসর মো. জিয়াউল হক।
হারের দায় নিজের কাঁধে তুলে নিলেন সাকিব।

হারের দায় নিজের কাঁধে তুলে নিলেন সাকিব।

অনলাইন ডেস্ক:  চট্টগ্রাম টেস্টে আফগানিস্তানের কাছে ২২৪ রানের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে বাংলাদেশ। এই পরাজয়ের দায় শেষ পর্যন্ত নিজের কাঁধেই তুলে নিলেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

ওই ম্যাচে ব্যাটে-বলে সব ক্ষেত্রেই বাংলাদেশকে ছাপিয়ে গেছে টেস্ট ক্রিকেটের সর্বকনিষ্ঠ দল আফগানিস্তান। এই দলের অধিনায়কও ছিলেন টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ অধিনায়ক হিসেবে নাম লেখানো রশিদ খান। টি-টোয়েন্টি আর ওয়ানডে ক্রিকেটে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন অনেক আগেই। বাকি ছিল টেস্ট ক্রিকেটে। বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ইনিংসে ১১ উইকেট আর এক ইনিংসে অর্ধশত রান করে তারই জানান দিয়ে দিলেন হয়তো।

পঞ্চম দিনে এসে শেষ সেশনে ১ ঘণ্টা দশ মিনেটের জন্য খেলা শুরু হয়েছিল। মাত্র ১১১টা বল কোনোরকম পার করে দিলেই ম্যাচটা ড্র হয়ে যেত। সে হিসেব করেই ব্যাট করতে নেমেছিলেন সাকিব আর সৌম্য। কিন্তু উইকেটে এসেই প্রথম বলে জহীর খানের বলে উইকেট রক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাঝঘরে ফেরেন সাকিব।

এরপর আর সৌম্য, মিরাজ, তাইজুলরা মিলে বাঁচাতে পারেননি ম্যাচটা। ততক্ষণে লেখা হয়ে গেছে আফগান রূপকথা।

প্রথম বলে উইকেট দিয়ে আসায় ম্যাচ হেরেছে বাংলাদেশ। এর জন্য সাকিব অবশ্য নিজেকেই দুষছেন।

তিনি বলেন, ‘মেনে নেওয়া অবশ্যই কষ্টের। ৪ উইকেট নিয়ে ১ ঘণ্টা ১০ মিনিট টিকে থাকতে হতো। আমি শুধু আমারটাই বলতে পারি। প্রথম বলে আউট হয়ে দলের কাজটা কঠিন করে ফেলেছি। দায়িত্ব আমার কাঁধেই পড়ে। প্রথম বলে কাট-শট না খেললেও হতো। না খেলার মতোই বল ছিল। তবু শট খেলে ফেলেছি। সেখানে দল চাপে পড়ে গেছে। যেহেতু আমি উইকেটে ছিলাম, মূল ভূমিকাটাই পালন করা উচিত ছিল। সেটি করতে পারলে ড্রেসিংরুম আরও স্বচ্ছন্দ থাকত। তাতে ম্যাচটা শেষ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া যেত, ড্র হওয়ার সম্ভাবনা থাকত। চাইছিলাম প্রথম বলটা ভালোভাবে সামলাতে। আসলে আমারই দোষ।’

শেয়ার করুন




© dailysomoyerkhobor। সর্বসত্ব সংরক্ষিত।